Posted on

যেকোনো কাজের কিছু নিয়ম আছে। আপনার শিশুকে গল্প পড়ে শুনানোরও (Storytelling) তেমন কিছু নিয়ম আছে যেগুলো মেনে চললে উপকারটা একটু বেশিই হবে। আমাদের আগের লেখায় আপনারা জেনেছেন কেন শিশুদের গল্প পড়ে শুনানো (Storytelling) খুব গুরুত্বপূর্ণ। লেখার শেষে আমরা বলেছিলাম যে শিশুদের গল্প পড়ে শুনানো ফলপ্রসু করতে কিছু নিয়ম মেনে চলা ভালো। এরকম ৭ টি নিয়মের কথা বলা হয়েছে এই লেখায়। ঝটপট কিছু গল্পের বই কিনে ফেলুন আর নিয়মগুলো মেনে জমিয়ে ফেলুন গল্পের আড্ডা আপনার শিশুর সাথে।

১। গল্পের সাইজ

যে গল্পগুলো পড়ে শুনাবেন সেগুলো যেন খুব ছোট অথবা খুব বড় না হয়। ৩-৫ বছর বয়সী শিশুদের জন্য ১৫-২০ পৃষ্ঠার মধ্যে গল্প হলে ভালো হয়। এই বয়সী শিশুদের বইয়ে প্রতি পাতায় থাকবে কালারফুল ছবি আর প্রতি পাতায় ২-৩ টি করে লাইন। ৬-৮ বছর বয়সীদের জন্য একটু কম ছবি এবং লেখা বেশি হলে ভালো। এর চেয়ে বড়দের জন্য যে বইগুলো কিনবেন সেগুলো তারা নিজেরাই পড়বে। সেভাবে ভেবে বই কিনুন।

২। সঠিক পরিবেশ

একদিকে ফুল ভলিউমে টিভি চলছে অপরদিকে বাড়ির সদস্যরা হৈ-হুল্লোড় করছে এমন পরিবেশে গল্প শুনাতে বসবেন না। আপনার শিশুর জন্য যদি আলাদা রুম থাকে তাহলে সেখানে বসুন – মেঝেতে অথবা তার খাটে। শিশুর সামনে বইটি ভালো করে মেলে ধরে গল্প বলুন। পর্যাপ্ত আলো যেন থাকে সেদিকে খেয়াল রাখুন। সাধারণত রাতে ঘুমানোর আগে শিশুকে একটি করে বই পড়ে শুনাতে পারেন। আপনার এই ১৫-২০ মিনিট সময়ের মূল্য কোনকিছু দিয়ে পরিমাপ করা যাবে না।

৩। গল্পের ভূমিকা দিন

যদি নিজের স্মৃতি থেকে গল্প বলতে চান তাহলে গল্পটি আপনি কোথায় থেকে শুনেছেন বা কার কাছ থেকে শুনেছেন সেটা সম্পর্কে বলতে পারেন। গল্পটি কি নিয়ে সেটি ভাবুন, গল্পটি কিভাবে আপনার শিশুকে সাহায্য করতে পারে সেটি চিন্তা করুন। মোদ্দা কথা গল্প শুরু করার আগেই গল্পটি সম্পর্কে শিশুর মনে কৌতুহল তৈরি করুন।

৪। ঠিকঠাক মত এক্সপ্রেশন দিন

এটি খুব গুরুত্বপূর্ণ। যখন গল্প পড়ে শুনাবেন তখন গল্পের কাহিনী অনুযায়ী আপনার এক্সপ্রেশন দিন। স্বরের উঠানামার মাধ্যমে, বিভিন্ন শব্দের মাধ্যমে গল্পকে জীবন্ত এবং প্রাণবন্ত করে তোলার চেষ্টা করুন। আপনার শিশুকেও একই স্টাইলে গল্প বলার ব্যাপারে উৎসাহ দিন। খারাপ মুড নিয়ে বা ইচ্ছার বিরুদ্ধে গল্প শুনাতে বসবেন না। শিশুরা কিন্তু ভালই সেন্সেটিভ। ঠিকই বুঝে ফেলবে যে আপনি খালি নিয়মরক্ষার কাজ করছেন। তারচেয়ে ওইদিন গল্প বলা বাদ রাখুন।

২৫ ও ২৬ অক্টোবর অনুষ্ঠিতব্য Evaly- Kids Time Mela 2019 এর জন্য রেজিস্ট্রেশন করতে উপরের ছবিতে ক্লিক করুন।

৫। উঁচু গলায় কিন্তু ধীরে গল্প বলুন

গলার স্বর একটু উঁচু রাখুন এবং আস্তে আস্তে আগান। আপনার স্বর যেন গল্পের অনুভূতিগুলোর সাথে মিলে সেদিকে খেয়াল রাখুন। গল্পে উত্তেজনা থাকলে কথার টোনে উত্তেজনার আমেজ আনুন, কষ্ট থাকলে দুঃখ দুঃখ ভাব আনুন।

৬। শিশুর অংশগ্রহণ নিশ্চিত করুন

গল্প বলা মানে কিন্তু আপনি খালি বলে যাবেন আর শিশু খালি শুনে যাবে তা না। যেখানেই এবং যখনই সুযোগ পাবেন শিশুকে involve করুন। তাকে টুকটাক প্রশ্ন করুন, গল্প শেষে গল্পের মেসেজটি সে বুঝতে পেরেছে কিনা সেটি জানার চেষ্টা করুন, অথবা গল্পের চরিত্রের জায়গায় সে থাকলে কি করত সেটি জিজ্ঞেস করুন।

৭। একটি গল্পের বই কয়েকবার পড়ে শুনান

শিশুরা একটি গল্প আত্মস্থ করতে কিছুটা সময় নেয়। একবার করে একটি গল্প শুনলে খুব সহজেই সে ভুলে যাবে কিছুদিন পরে। তাই ঘুরিয়ে ফিরিয়ে একটি গল্পের বই বা একটি গল্প কয়েকবার শুনান। একই গল্প আবার টানা কয়েকদিন চালাতে যাবেন না।

গল্পের বই পড়ে শুনানোর ব্যাপারটি আনন্দময় রাখুন, এটিকে আবার পরীক্ষা বানিয়ে যেন না ফেলেন সেদিকে খেয়াল রাখবেন। মোটামুটি শিশুর বয়স ৩ হওয়ার পর থেকেই গল্পের বই পড়ে শুনানোর কাজটি শুরু করে দিন। অনেকে আছেন ২ বছর বয়স থেকেই শুরু করেন। তাতেও সমস্যা নেই কোন।

শিশুদের (বিশেষ করে ৩-১২ বছর) মানসিক বিকাশের কথা বিবেচনা করে বয়সভিত্তিক ভালো বাংলা গল্পের ২০০ টি বইয়ের একটি তালিকা আমরা তৈরি করেছি। কষ্ট করে আপনাদের আর খুঁজে বের করতে হবে না কোন বয়সী শিশুদের জন্য কোন গল্পের বইগুলো কেনা উচিত। এখানে সেই বইগুলোর লিস্ট এবং বিস্তারিত জানতে পারবেন – লিঙ্ক

এই বইগুলো নিয়ে তৈরি করা সিরিজগুলো অনলাইনে স্বল্পমূল্যে কিনতে পারবেন আমাদের পার্টনার Togumogu থেকে। অর্ডার দিলে তারা ফ্রি হোম ডেলিভারি দিয়ে আপনার বাসায় পৌঁছে দিবে।

অনলাইনে বইগুলো পেতে চাইলে যান এই লিঙ্কে

আপনার সন্তানের জন্য এই বইয়ের সিরিজটি অর্ডার করতে ছবিতে ক্লিক করুন।

আপনার শিশুর গল্প বলার ক্ষমতা এবং creativity বাড়ানোর জন্য আমরা চালু করেছি ‘Storymaking’ কোর্স। শিশুরা নিজেরাই নিজেদের গল্প তৈরি করে, সেগুলোর ছবি আঁকে। এরপর সেটাকে আমরা e-book বানিয়ে আমাদের ওয়েবসাইটে দিয়ে দেই যেন যে কোন অভিভাবক চাইলে শিশুদের লেখা এই গল্পগুলোর ডাউনলোড করে নিজের শিশুদের পড়ে শুনাতে পারে।

আমাদের Kids Time এর কোর্সে শিশুদের তৈরি করা গল্পগুলো ডাউনলোড করতে পারবেন এই লিঙ্ক থেকে – লিঙ্ক

শিশুদের সৃজনশীলতা বাড়ানো নিয়ে ৪-১০ বছর বয়সী শিশুদের সাথে কাজ করছে Kids Time. 

আমাদের Kids Time সেন্টারগুলোতে আগামী ব্যাচের ভর্তি শুরু হয়েছে। ক্লাস শুরু হবে জানুয়ারি ২০১৯ থেকে। কিন্তু তার আগেই অভিভাবকদের সীট বুক করার জন্য রেজিস্ট্রেশন করে ফেলতে হবে। এরপর আমরা অভিভাবকদের ইন্টারভিউয়ের জন্য কল করবো।

আমাদের প্রতিটি সেন্টারে সীট খুব সীমিত। প্রতি ৫ টি আবেদনের মধ্যে ১ জন সাধারণত ভর্তির সুযোগ পায়। এবং আগে যারা আবেদন করেন তারাই আগে সুযোগ পাবেন ভর্তির ব্যাপারে।

রেজিস্ট্রেশন লিঙ্ক 

বিস্তারিত জানতে নিচের ছবিতে ক্লিক করুন।

4 Replies to “আপনার শিশুকে গল্প পড়ে শুনানোর ৭টি নিয়ম”

  1. আপনাদের গুলশান আর লাল্মাটিয়া সেন্টারের রিসোরস আর সিস্টেম কি সব এক? গুলশান সেন্টার এর ডিটেইল ঠিকানা, নম্বর ক্লাসের সময় আর খরচ টা জানতে চাই। ৩ বছরের বাচ্চার জন্য কোন কোর্স্টা উপযোগী হবে জানালে উপকৃত হতাম।

    1. Yes. They are same. Gulshan center address: Singapore School Kinderland, House 32, Road 123, Gulshan 1. Please call at 01771588494 for any detail. Thanks.

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *