শিশুদের সাথে কিডস টাইমের ভিন্নরকম বিজয় দিবস উদযাপন

শিশুদের সাথে কিডস টাইমের ভিন্নরকম বিজয় দিবস উদযাপন

December 18, 2018 crafting News 0

আমরা সবাই জানি যে শিশুরা মজা আর আনন্দের মাধ্যমেই শেখে। এই ১৬ ডিসেম্বর বিজয় দিবসে শিশুদের তাই আমাদের মুক্তিযুদ্ধ এবং স্বাধীনতার ইতিহাস নিয়ে জানানোর জন্য আমরা বেছে নিয়েছি একটু ভিন্নরকম এবং মজার উপায়।

বিজয় দিবস নিয়ে শেখানোর জন্য গত ১৪-১৫ ডিসেম্বরের (শুক্র-শনিবার) সেশনে আমাদের প্রতিটি সেন্টারের ক্লাসরুমে ছিল ক্র্যাফটিং করে বানানো স্মৃতিসৌধ। বাচ্চারা বেশি অবাক হল যখন দেখলো এই স্মৃতিসৌধ তারা প্রত্যেকে নিজেই তৈরি করবে। ক্লাসে এসে স্মৃতিসৌধ দেখেই শিশুরা আনন্দে লাফিয়ে উঠে “এটি আমি বানাবো…আমি বানাবো” বলে।

খুব ভালো লাগেছিল যখন ৪ বছরের আলিফ স্মৃতিসৌধ দেখে লাফাতে লাফাতে বলছিল, ”এটি বাংলাদেশ। আমি জানি এটি বাংলাদেশ।”

 

মহা সমোরোহে শুরু হয়ে গেল তাদের কাজ। কাগজ কেটে কেটে প্রত্যেকেই স্মৃতিসৌধ বানানোর কাজ আগাতে থাকলো। আর পাশাপাশি আমাদের শিক্ষকরা পরিচয় করিয়ে দিতে থাকলো বিজয় দিবস ও তার ইতিহাসের সাথে।

স্মৃতিসৌধকে রঙিন সব কাগজের ফুল দিয়ে সাজাতে লাগলো শিশুরা। কেউ কেউ পতাকা বানিয়ে জুড়ে দিল। কেউ কেউ মেঘ আর পাখিও দিল। আবার অনেকে স্মৃতিসৌধের সামনে টলটলে পানির পুকুরও বানিয়ে দিল।

 

 

আর একজন তো তার বাবাকে সাথে নিয়ে ক্লাসে ঢুকে বলল, “তুমি কি জানো বাবা এটা কি? আমি কিন্তু জানি। আর মিস তুমি বাবাকে বলে দাও আমাকে যেন অবশ্যই স্মৃতিসৌধ দেখাতে নিয়ে যায়।” ওদের উৎসাহ এবং আগ্রহ খুব আনন্দ দিয়েছে আমাদের।

 

 

অনেক শিশুই বিজয় দিবস কি বোঝেনা। তারা জানেনা এই বিজয় দিবসের পেছনের কথা। স্মৃতিসৌধের ছবি এবং সেখানে ফুল দেয়ার মধ্যেই খালি হয়তো সীমাবদ্ধ থাকে জানার সীমা। টিভিতে মাঝে মাঝেই আমরা দেখি সেখানে শিশুদের এবং বড়দের জিজ্ঞেস করছে – বলতো, আজকের দিনে কি হয়েছিলো। যখন অনেকেই পারছে না, তখন অনেকেই ছি ছি করছি। সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করছি আর দেশের ইতিহাস ঐতিহ্য নিয়ে জানে না বলে এ যুগের শিশু-কিশোরদের নিয়ে হা-হুতাশ করছি।

আবার আমাদের শিশুরা জানেনা বলে অনেকেই অপরের সামনে লজ্জা পাই। কিন্তু আমরা কি আমাদের জায়গা থেকে অতটুকু চেষ্টা করি? আমরা কি শিশুদেরকে তাদের মতো করে জানানোর চেষ্টা করেছি? কিছু এঁকে বা বানাতে যেয়ে ইতিহাসের ছোট ছোট শক্তিশালী গল্পগুলো বাচ্চাদের সাথে শেয়ার করেছি?

 

Kids Time এর পুরো ‘ক্র্যাফট কারিকুলাম’ তৈরি করার সময় খুব সচেতনভাবেই বাংলাদেশের সংস্কৃতি এবং ইতিহাসকে শিশুদের সাথে পরিচয় করিয়ে দেয়ার একটা ব্যাবস্থা রেখেছি। এবার যেমন বিজয় দিবস নিয়ে এরকম মজার ক্র্যাফট এবং ডিজাইনের কাজ করতে করতে শিশুরা শিখল মুক্তিযুদ্ধ, স্বাধীনতা বা স্মৃতিসৌধ সম্পর্কে জানল। আবার ১৪ এপ্রিল বাংলা নববর্ষের আগে থাকে অন্য ধরণের ক্র্যাফট, ভাষা আন্দোলন সম্পর্কে জানাতে অন্য রকম ক্র্যাফটের কাজ। এতে করে কেবল ক্র্যাফটের কাজ করার মাধ্যমে যেন শিশুরা নিজেদের সৃজনশীলতা বাড়ানোর পাশাপাশি নিজের দেশের ইতিহাস, ঐতিহ্য সম্পর্কেও ধীরে ধীরে শেখে নিতে পারে। নিজের শেকড়কে ভালোমতো জানা প্রতিটি শিশুর জন্য খুব গুরুত্বপূর্ণ।

শ্রদ্ধেয় বাবা-মাদের প্রতি অনুরোধ রইলো একবার অন্তত আপনার শিশুকে নিয়ে যান সাভার স্মৃতিসৌধ এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে অবস্থিত শহীদ মিনারে। হাতে তুলে দিন মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক ছোটদের জন্য লেখা বই। এসব দিনে যেহেতু ছুটি থাকেই শিশুকে নিয়ে মজার এরকম কিছু কাজ করুন। পরের প্রজন্মকে জাতি হিসাবে আমাদের শেকড়কে চেনানোর দায়িত্ব হিসাবে অভিভাবক হিসাবে আমাদের সবার।

………………………………………………

আমাদের Kids Time এ আপনার শিশুকে ভর্তির ব্যাপারে বিস্তারিত জানতে ক্লিক করুন নিচের ছবিতে।

সরাসরি কথা বলুন এই নাম্বারেঃ 01771588494

Kids Time Admission

 

 

 

Get parenting article to your inbox

You have successfully subscribed to the newsletter

There was an error while trying to send your request. Please try again.

Kids Time will use the information you provide on this form to be in touch with you and to provide updates and marketing.